সৈয়দপুরে জামে মসজিদ কমিটির দ্বন্দ, পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সমাধানরে চেষ্টা

সৈয়দপুরে জামে মসজিদ কমিটির দ্বন্দ, পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সমাধানরে চেষ্টা

জাহিদুল হাসান জাহিদ,স্টাফ রিপোর্টার।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে বাইতুল সোবাহান জামে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করায় সৃষ্টি হয় জটিলতা।পরবর্তীতে কাকে সম্পাদক করা হবে এই নিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।সেই আলোচনা সভায় মৃত মহির উদ্দীনের ছেলে আকতারের সঙ্গে কৃষি ব্যাংকের অবসর প্রাপ্ত আব্দুস সামাদ বাক বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। পরে মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে আকতার,আকবার,সাত্তার ও জলিলের নাম উল্লেখ করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আব্দুস সামাদ। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসনের আহবানে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শুক্রবার(২১ অক্টোবর ) বাদ জুমুআর নামাজের পর সৈয়দপুর টেকনিক্যাল কলেজ পাড়া বাইতুল সোবাহান জামে মসজিদে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এস আই সোহরাবের আহবানে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

অভিযোগকারী সামাদ তার বক্তব্যে বলেন,তাকে ঘটনার দিন ইট দিয়ে মারার চেষ্টা করে আকতার গংরা।

অপর দিকে আকতার তার বক্তব্যে বলেন,ঘটনার দিন আব্দুর সামাদের সঙ্গে আমার কোন মারা মারি হয়নি। কিন্তু সে (সামাদ) আমায় হঠাৎ ঘুষি মারতে উদ্ধত হয়। কারণ সে এক সময় আমার বাড়ির উপর দিয়ে বিদ্যুতের তার নিতে চেয়ে ছিলো। সেই সময় বিদ্যুতের তার বাড়ির উপর দিয়ে নিতে বাধা দেওয়ায় সেই ক্ষোভে আমাদের নামে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে।

এ সময় কমিটির অন্যান্য সদস্যরা তাদের বক্তব্যে বলেন,বাইতুল সোবাহান জামে মসজিদ ২০১৪ সালে নির্মাণ থেকে সকলের সাহায্য সহেযোগিতায় মসজিদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সাবেক অবসর প্রাপ্ত ওয়ারেন্ট অফিসার আশরাফের মাধ্যমে মসজিদের কাজ ভালো ভাবে চলে আসছিল। বিপত্তি দেখা দেয় মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুস আজিজ হজ্বে যাওয়ার কারণে সে (আজিজ) পদত্যাগ পত্র দেন।দীর্ঘ আট মাস ধরে সম্পাদক পদটি শুন্য থাকায় কমিটির সদস্যরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়েছে। তবে তাদের সবার বক্তব্যে উঠে আসে মসজিদটার পরিবেশটা ঘোলাটে করতে এক-দুই জন ব্যক্তি অপপ্রচার চালাচ্ছে।

এ সময় উপস্থিত মুসল্লিদের  এক জন বাদে সবাই বলেন, সেই দিন মসজিদে কোন ধরনের মারা মারির মতো কোন ঘটনা ঘটেনি। আলোচনায় প্রায় আট বছর হয়েছে এই কমিটির মেয়াদ নতুন পুরাতনদের নিয়ে এ বিষয়ে আবার নতুন করে কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়।

মসজিদের ইমাম ক্ষোভ করে তার বক্তব্যে বলেন,আজ একটি কমিটির জন্য আমাদের প্রশাসনের সহযোগিতা নিতে হচ্ছে। তা হলে আমাদের বিবেক কোথায় চলে গেছে !

এস,আই সোহরাব সবাইকে উদ্দেশ্য করে বলেন,মসজিদের সভাপতি আশরাফসহ সবাই মিলে বসে আলোচনার মাধ্যমে কমিটি বিষয় সিন্ধান্ত নিবেন। কোন ধরনের বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করলে আমাকে আইনি ভাষায় কথা বলতে হবে। তিনি শান্তি শৃংঙ্খলা বজায় রাখতে সকলের সহযোগিতার কথা বলেন।