সিলেটে ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও সম্প্রসারণ পর্যালোচনা  বিষয়ক কর্মশালা সমাপনী

সিলেটে ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও সম্প্রসারণ পর্যালোচনা  বিষয়ক কর্মশালা সমাপনী
ছবি: সংগৃহীত

সিলেট অফিস।। ৩১ মে, সোমবার।। সরেজমিন গবেষণা বিভাগ (ওএফআরডি) বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিএআরআই) সিলেটের উদ্যোগে ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট জয়দেবপুরের অর্থায়নে সিলেটে অনুষ্ঠিত সিলেটে দুই দিনব্যাপী ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও স¤প্রসারণ পর্যালোচনা এবং কর্মসূচি প্রণয়ন বিষয়ক কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠান ৩১ মে সোমবার সিলেটের চন্ডিপুলস্থ আঞ্চলিক মৃত্তিকা গবেষণা ইন্সটিটিউটের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়।
সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। এদেশের উন্নয়নে প্রথমে কৃষি ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে হবে। বর্তমান সরকার দেশের কৃষি ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় সরকারের সংশ্লিষ্ট  কর্তৃপক্ষের সাথে দেশের কৃষকদের সুসর্ম্পক গড়ে তোলার পাশাপাশি কৃষিজ সমস্যার সমাধান খুজে বের করতে হবে এবং তারই আলোকে কাজ করতে হবে। 
দুদিনব্যাপী কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট জয়দেবপুর- গাজীপুরের পরিচালক (সেবা ও সরবরাহ) ড. এসএম শরিফুজ্জামান।  
কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর, সিলেট অঞ্চল এর অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ দিলীপ কুমার অধিকারী’র সভাপতিত্বে ও বিএআরআই (ওএফআরডি) সিলেটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মাহমুদুল ইসলাম নজরুলের পরিচালনায় কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আরএআরএস, বিএআরআই, মৌলভীবাজারের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জুলফিকার আলী ফিরোজ ও কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেটের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ  সালাহ্ উদ্দিন।
কর্মশালায় সাইট্রাস্ট গবেষণা কেন্দ্র জৈন্তাপুরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শাহ মো. লুৎফুর রহমান, কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেটের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ কাজী মুজিবুর রহমান, সুনামগঞ্জের উপ-পরিচালক ফরিদুল হাসান, মৌলভীবাজারের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফুল বারী, হবিগঞ্জের উপ-পরিচালক তমিজ উদ্দিন, বিএডিসি সিলেটের উপ-পরিচালক সুপ্রিয় পাল, এসআরডিআই সিলেটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এনায়েত উল্লাহ, ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট হবিগঞ্জের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মোজাম্মেল হকসহ বিএআরআই, বিআরআরআই, এসআরডিআই, বিআইএনএ, বিএসআরআই, বিইএ, বার্টন, এসসিএ, পিকিউও, এআইএস, বিএডিসি, হার্টিকালচার, ডিএএম, এনজিও কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং কৃষক প্রতিনিধিগণ অংশ গ্রহণ করেন।