সিলেটে ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও সম্প্রসারণ পর্যালোচনা বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন

সিলেটে ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও সম্প্রসারণ পর্যালোচনা বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন
ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেট অফিস।।  স্থানীয় পর্যায়ে কৃষি উন্নয়নের লক্ষ্যে সিলেটে দু’দিন ব্যাপী ‘আঞ্চলিক গবেষণা ও স¤প্রসারণ পর্যালোচনা এবং কর্মসূচি প্রণয়ন বিষয়ক কর্মশালা শুরু হয়েছে। ৩০ মে রবিবার সকাল ১০টায় সিলেটের চন্ডিপুলস্থ আঞ্চলিক মৃত্তিকা গবেষণা ইন্সটিটিউটে কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়।
সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বিএআরআই, সিলেটের উদ্যোগে ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, জয়দেবপুরের অর্থায়নে সিলেট অঞ্চলের শতাধিক কৃষি বিজ্ঞানী ও কৃষি কর্মকর্তা কর্মশালায় অংশ গ্রহণ করেন।
কর্মশালায় বক্তারা বলেন, কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে বর্তমান সরকার কাজ করছে। এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্টদের কৃষি উন্নয়নে এগিয়ে আসতে হবে। দেশের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্য ঘাটতি মেটাতে বেশি করে চাষাবাদ করতে হবে। সুনির্দিষ্ট নীতিমালাকে সামনে রেখে প্রযুক্তির উন্নয়নের মাধ্যমে কৃষি ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে সকলকে এক যোগে কাজ করতে হবে। 
দু’দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট জয়দেবপুর- গাজীপুরের পরিচালক (সেবা ও সরবরাহ) ড. এস.এম. শরিফুজ্জামান।
কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর, সিলেট অঞ্চল এর অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ দিলীপ কুমার অধিকারী’র সভাপতিত্বে ও বিএআরআই (ওএফআরডি) সিলেটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মাহমুদুল ইসলাম নজরুলের পরিচালনায় কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আরএআরএস, বিএআরআই, মৌলভীবাজারের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জুলফিকার আলী ফিরোজ ও কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেটের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ  সালাহ্ উদ্দিন। 
কর্মশালায় সাইট্রাস্ট গবেষণা কেন্দ্র জৈন্তাপুরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শাহ মোঃ লুৎফুর রহমান, কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর সিলেটের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ কাজী মুজিবুর রহমান, সুনামগঞ্জের উপ-পরিচালক ফরিদুল হাসান, মৌলভীবাজারের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফুল বারী, হবিগঞ্জের উপ-পরিচালক তমিজ উদ্দিন, বিএডিসি সিলেটের উপ-পরিচালক সুপ্রিয় পাল, এসআরডিআই সিলেটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এনায়েত উল্লাহ, ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট হবিগঞ্জের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ মোজাম্মেল হক সহ বিএআরআই, বিআরআরআই, এসআরডিআই, বিআইএনএ, বিএসআরআই, বিএই, বার্টন, এসসিএ, পিকিউও, এআইএস, বিএডিসি, হার্টিকালচার, ডিএএম, এনজিও কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং কৃষক প্রতিনিধিগণ অংশ গ্রহণ করেন।