সিলেটে তাপদাহে জনজীবন অতিষ্ঠ

সিলেটে তাপদাহে জনজীবন অতিষ্ঠ
ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেট অফিস।। ২৭ এপ্রিল, মংগলবার।। বৈশাখ মাস অর্ধেক হয়ে আসলেও সিলেটের আকাশে মেঘের দেখা নেই। আছে শুধু সূর্যের চোখ রাঙানি। এদিকে তাপদাহে কাবু প্রাণিকূল। এ যেন আগুনের হল্কা বিঁধছে শরীরে। গরমে হাঁসফাঁস করছে মানুষ। আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, এমন অসহনীয় গরম চলবে আরও কয়েকদিন।
এদিকে বেলা বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সূর্যের তেজ যেন অগ্নি রুপে ঝরে পড়ছে। সূর্য ডোবার পরও তাপমাত্রা কমছে না। শীতল হচ্ছে না চারপাশ। শরীর জ্বালানো এই তাপের হাত থেকে রেহাই মিলছে না কারও।
এমনিতেই করোনাকালীন সময়ের লকডাউন, তারপরে তাপদাহ বাহিরে তেমন দেখা যায়নি অনেক দিন মজুর ও শ্রমিকদের। অনাহারে থাকা মানুষগুলো বাসায় বসে থাকলে সংসার চলেনা তারা কাজ না পেয়ে এই তাপদাহে দিশেহারা ছুটছে। চরম রৌদ্রের উত্তাপে কাজকর্ম জীবিকা নির্বাহ করা অনেক কষ্টকর হয়ে গেছে। তাপে অসুস্থ হয়ে পড়ছে মানুষ।
কদমতলীর রিকশাচালক আনোয়ার আলী জানান, সংসারের খাবার সংগ্রহের জন্য রোদ কি আর ঝর বাদল কি। কাজ না করলে অনাহারে থাকতে হবে।
শহরের ইট কাঠের খাঁচার ভিতর থাকা গৃহিণীরা গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। ফ্যানের গরম বাতাস আর মাঝে মধ্যে লোডশেডিং কষ্টের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।
সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা: হিমাংশু লাল রায় জানান, গত কয়েক দিনের তাপপ্রবাহের কারণে খেটে খাওয়া দিনমজুরদের হিটস্টোকের সম্ভাবনা রয়েছে। হাসপাতালে পেটের পিড়াজনিত রোগীর সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে। রোগীদের মধ্যে বয়স্করা বেশী। বিশেষজ্ঞ ডাক্তার গরমে বেশি বেশি বিশুদ্ধ পানি পান করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং করোনা প্রতিরোধে সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলেছেন।
সিলেট আবহাওয়া কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ জানান, সিলেটজুড়ে তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এটা অস্বাভাবিক তাপমাত্রা নয়। বৈশাখে বৃষ্টি না থাকায় এমন আবহাওয়া। চলমান এ তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে আরও সপ্তাহখানিক। তবে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে; রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে।
তিনি আরও জানিয়েছেন, বুধবার ভোরে সিলেটে কালবৈশাখীকে সঙ্গী করে বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলেও এই বৃষ্টিতে তাপমাটায় কোনো হের ফের হবে না। ইতোমধ্যে সিলেটে অনেক এলাকায় তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে।
গতকাল সিলেটে ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বিরাজ করছিলো জানিয়ে তিনি বলেন, সিলেটে আজ মঙ্গলবারের তাপমাত্রা ৩২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা গত তিন-চারদিন থেকে বিরাজ করছে। তবে সিলেটের সর্বোচ্চ তাপমাতা ছিলো ২০১৪ সালের মে মাসে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এদিকে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে সিলেট প্রচুর বৃষ্টিপাত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, মে মাসের শুরু থেকে সিলেটে প্রচুর বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তখন তাপমাত্রা কিছুটা কমতে শুরু করবে।