সিলেট নগরীতে নেটওয়ার্ক বিভ্রাট

সিলেট নগরীতে নেটওয়ার্ক বিভ্রাট
ছবি: সংগৃহীত

সিলেট প্রতিনিধি।। সিলেট নগরীর আলিয়া মাদরাসা মাঠে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ চলছে। তবে সমাবেশস্থলসহ নগরের বেশ কিছু এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা। তারা জানান, সকাল থেকে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক শূন্য দেখাচ্ছে। টেলিটকমহ অনান্য সিমের নেটওয়ার্ক একেবারে ধীরগতি করে রাখা হয়েছে।

আর নেটওয়ার্ক না থাকায় সংশ্লিষ্ট কাজে ব্যাঘাত ঘটছে নগরবাসীসহ অনেকের। মাঝে মধ্যে মোবাইল ফোনে কথা বলা ছাড়া অন্য কোনো কাজ বা যোগাযোগ সম্ভব হচ্ছে না। পেশাগত দায়িত্ব পালনে গণমাধ্যমকর্মীদেরও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশকে কেন্দ্র করে দুদিন আগে থেকেই নেতাকর্মীরা আসতে থাকন। শুক্রবার রাত শনিবারও নেতাকর্মীরা আসেন। তাদের দাবি, শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে মোবাইল নেটওয়ার্ক পাওয়া যাচ্ছে না। অনেক চেষ্টা করেও মোবাইল ফোনে যোগাযোগ সম্ভব হচ্ছে না।

নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেনয়, দেশের বিভাগীয় শহরগুলোতে বিএনপির ধারাবাহিক গণসমাবেশ চলছে। চট্টগ্রাম ছাড়া প্রায় প্রতিটি সমাবেশের দিনই সংশ্লিষ্ট এলাকায় মোবাইল ফোনের ইন্টারনেটের গতি কমে যায়।

মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটর সূত্র জানায়, সরকারি নির্দেশনায় তারা সমাবেশের দিন নির্দিষ্ট এলাকায় নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে দিয়েছেন। তবে তারা অফিশিয়ালি এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, খুলনা, রংপুর, বরিশাল ও ফরিদপুরে সমাবেশের দিন থ্রি-জি ও ফোর-জি ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়। শুধু টু-জি সেবা সচল ছিল, যার মাধ্যমে শুধু মোবাইল ফোনে কথা বলা যায়। অবশ্য সমাবেশ শেষ হওয়ার পরপরই ইন্টারনেট সেবা স্বাভাবিক হয়ে যায়। তবে এ বিষয়ে মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটরদের কেউ আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলতে চায় না।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য মিজানুর রহমান চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, পরিবহন ধর্মঘটের মতো ইন্টারনেটের গতিও সরকারের নির্দেশনায় করা হয়। যাতে বিএনপির সমাবেশ ফেসবুক পেজসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচার করতে না পারে এবং যোগাযোগ অ্যাপ ব্যবহার করতে না পারে। তবে কোনো বাধা বিপত্তিই জনস্রোতকে থামাতে পারেনি।

উল্লেখ্য, নিত্যপণ্যের দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি দাবিতে দুপুর থেকে সিলেটে বিএনপির গণসমাবেশ চলছে। গণসমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।