সৈয়দপুরে চৌমুহনী বাজারে চিকিৎসাপত্র ছাড়া মিলছে ঘুমের ঔষধ

সৈয়দপুরে চৌমুহনী বাজারে চিকিৎসাপত্র ছাড়া মিলছে ঘুমের ঔষধ

জাহিদুল হাসান জাহিদ।স্টাফ রিপোর্টার।। নীলফামারীর সৈয়দপুর বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী বাজারের হানিফ ফার্মেসী চিকিৎসকের পরামর্শপত্র ছাড়া অবাধে ঘুমের ঔষধ বিক্রয়ের অভিযোগ করেন শ্রী দেব নাথ।

অভিযোগকারী বলেন, গত ১৬ অক্টোবর তার ছেলেকে পারিবারিক ভাবে বকা ঝকা করলে তার ছেলে ঔ রাতে দরজা লাগিয়ে ঘুমায়।পরের দিন সকালে ডাকা ডাকি করেও যখন ঘুম  থেকে উঠছিল না পেরে তার এক আত্মীয় বাড়ির সেলিং দিয়ে ঘরে প্রবেশ করে দরজা খুলে দেয়।তখন দেখে আমার ছেলে সটাং হয়ে ঘুমিয়ে আছে এবং তার ছেলের পড়ার টেবিলের উপর পরে আছে  জোলিয়াম ০.৫ ট্যাবলেটের পাঁচটি খালি পাতা।পরে তাকে বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করেন। তবে  সে এখনও বিপদ মুক্ত নয়। এখনও সে অচেতন ভাবে ঘুমোছে। অভিযোগকারি আরো বলেন,সে গোপনে জানতে পারে এসব ঘুমের ঔষধ হানিফ ফার্মেসী থেকে তার ছেলে ক্রয় করে খেয়েছে।এমন কি সে নিজেই ঐ ফার্মেসীর স্বত্বাধাকারী হানিফের কাছে জানতে চান, ডাক্তারের চিকিৎসাপত্র ছাড়া এতো গুলো ঘুমের ট্যাবলেট দিয়েছেন কেন ?এর কোন সৎ উত্তর দিতে পারেনি বলে ভুক্তভোগীর পিতা এমনটি অভিযোগ করেন।

সে আরো বলেন, ব্যবসার নামে যারা যুব সমাজের হাতে ডাক্তারের চিকিৎসাপত্র ছাড়া ঘুমের ঔষধ বা নেশার ঔষধ বিক্রি করছে তাদের শাস্তি দাবী করেন।

সত্যতা জানতে, প্রতিবেদক ঐ ফার্মেসীতে গিয়ে জোলিয়াম ০.৫ ট্যাবলেট চাইলে ডাক্তারের চিকিৎসাপত্র ছাড়াই এক পাতা জোলিয়াম ০.৫ ট্যাবলেট দিয়ে দেয় ফার্মেসীর মালিক। তখন তার কাছে জানতে চাওয়া হয় চিকিৎসাপত্র ছাড়া আপনি কি ভাবে ঘুমের ট্যাবলেট বিক্রি করেন। তখন সে বলেন, আমি কোন ছেলেদের কাছে এসব বিক্রয় করি না। শুধু বয়স্কদের কাছে বিক্রয় করে থাকি।