সৈয়দপুরে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ব্যতিরেকে বিবাহ, অবশেষে আদালতে মামলা, স্ত্রীকে মামলা তুলে নিতে হুমকি

সৈয়দপুরে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ব্যতিরেকে বিবাহ, অবশেষে আদালতে মামলা, স্ত্রীকে মামলা তুলে নিতে হুমকি

জাহিদুল হাসান জাহিদ।স্টাফ রিপোর্টার।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে স্ত্রীকে না বলে  দ্বিতীয় বিবাহ  স্বামীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করায় স্ত্রী কে গুম ও প্রাণনাশের হুমকি সহ সন্তানকে জোড়পূর্বক তুলে নেওয়ার ভয়ভীতি দেওয়ায় মিজানুর রহমানের নামে থানায় সাধারণ ডায়রী হয়েছে।

১১ এপ্রিল সৈয়দপুর থানায় নিচু কলোনীর মোঃ বাদলের কন্যা মোছাঃ বাবলী (৩০) তার স্বামী মিজানুর রহমানের নামে এই ডায়রী দায়ের করা হয়।

ডায়রী ও মামলার সুত্রে জানাযায়,রংপুর তারাগঞ্জ চেংপাড়ার সামসুল হকের পুত্র মোঃমিজানুর রহমানের সঙ্গে ১৩ বছর পূর্বে নিচু কলোনীর মোঃবাদলের মেয়ে মোছাঃ বাবলীর সঙ্গে পারিবারিক ভাবে বিবাহ হয়। তাদের সংসার জীবনে একটি পুত্র সন্তানও রয়েছে।তার নাম বাধন(৮)। মিজানুর হঠাৎ ছয় মাস আগে গোপনে আর একটি বিবাহ করে।প্রথম স্ত্রী পরে জানতে পারে।স্ত্রী প্রতিবাদ করলে তার উপর চলে নির্মম অত্যাচার।দ্বিতীয় বিবাহ করার  পর থেকে মিজানুর প্রায় বাবলীকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকার আনার জন্য সব সময় চাপ দিতে থাকে।এক সময় অর্থ লোভী স্বামী মিজানুর তার পরিবারের লোকজন নিষ্ঠুর নির্যাতন সহ মার ডাং করে স্ত্রী বাবলী ও তার ছোট সন্তান বাধনকে বাড়ী থেকে বের করে দেয়।পুত্র সন্তান কে নিয়ে বাবলী তার পিতার বাড়ী নিচু কলোনীতে আশ্রয় গ্রহন করে। অত্যাচার নির্যাতনে অতিষ্ট হয়ে বাবলী আখতার মিজানুর রহমানের নামে নীলফামারীর বিজ্ঞ আদালতে দুইটি মামলা দায়ের করেছে।মিজানুরের বিরুদ্ধে দুইটি মামলা হওয়ায় সে আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে।মিজানুর  গত ০৯/০৪/২০২১ তারিখ বিকাল ৫টায় তাদের পুত্র বাধনকে জোড় পূর্বক নিচু কলোনী মসজিদ মাঠ থেকে তুলে নেওয়ার চেষ্ঠা করে।এই সময় বাধনের চিৎকারে আশ পাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে।এক পর্যায়ে মিজানুর বাবলীর বাবার বাড়ির সামনে এসে গালি গালাজ করে বলে,মামলা তুলে না নিলে ভবিষ্যতে বাবলীকে মারপিট করে সন্তান বাধনকে সুযোগ বুঝে তুলে নিয়ে যাবে।ওই সময় বিভিন্ন প্রকার জীবন নাশের ভয়ভীতির হুমকিও  দেওয়া হয়। বাবলী ও তার পরিবারের লোকজন ভীষন নিরাপত্তাহীনতা সহ তার ও সন্তানের জান মালের ক্ষতির শংকার মধ্যে রয়েছে।

উল্লেখ্য মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে নীলফামারী বিজ্ঞ আদালতে দুইটি মামলা চলমান রয়েছে।চলমান মামলা গুলো হলো-১৯৬২ ইং সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ৬(৫) ধারা মতে নালিশ মামলা অপরটি নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা।