হত্যা না আত্মহত্যা, শ্বশুরবাড়িতে সপ্তাহ না যেতেই নববধূর মৃত্যু

হত্যা না আত্মহত্যা, শ্বশুরবাড়িতে সপ্তাহ না যেতেই নববধূর মৃত্যু
ছবিঃ সংগৃহীত

আবু তাহের।।  স্টাফ রিপোর্টার।। ১৯ মে, বুধবার।। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে এক সপ্তাহ না যেতেই কিশোরী গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায় গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে।শ্বশুরবাড়ির লোকজনের নির্মম নির্যাতনে কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (১৯ মে) সকালে উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়ের ছয়ঘড়িয়া গ্রাম থেকে গৃহবধূ শারমিন আক্তারের (১৫) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃত শারমিন জেলার সাঘাটা উপজেলার সাথালিয়া গ্রামের মোজাফ্ফর রহমানের মেয়ে এবং গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ছয়ঘড়িয়া গ্রামের আশরাফুল ইসলামের ছেলে রেহান মিয়ার (১৮) নববধূ।

থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মাসের ১২ তারিখে (বুধবার) দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্কে পালিয়ে বিয়ে করে রেহান ও শারমিন। আজ সকালে প্রতিবেশীরা ঘরের মধ্যে শারমিনের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

গোবিন্দগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলাউদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থলে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি শেষে মরদেহ করে থানায় আনা হয়েছে। তবে মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি। মরদেহের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই গ্রামের প্রতিবেশী ঠান্ডু আকন্দের ছেলে জুয়েল মিয়াকে আটক করা হয়েছে।

নিহত গৃহবধূর স্বজনরা অভিযোগ করে জানিয়েছেন, শ্বশুর বাড়ির লোকজনদের নির্মম নির্যাতনের কারণে তাদের মেয়ে শারমিনের মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।