১৭ বছর পালিয়ে হয়নি রক্ষা, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি গ্রেফতার

১৭ বছর পালিয়ে হয়নি রক্ষা, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি গ্রেফতার
ছবি: সংগৃহীত

ডেস্ক রিপোর্ট।। ঢাকা জেলার ধামরাইয়ের চাঞ্চল্যকর সামিনা হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী আঃ রহিম এবং রোকেয়া’কে চাঁদপুর জেলা হতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪।

ঢাকা জেলার ধামরাইয়ে নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে গৃহবধু সামিনা হত্যা মামলায় দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে পলাতক মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী আঃ রহিম (৬৪) এবং রোকেয়া (৫০)’কে চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানাধীন নারায়নপুর গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে।

র‍্যাব সূত্রে জানা যায়, ২০০৩ সালে সাভারের কাউন্দিয়া নিবাসী ভিকটিম সামিনা (১৮) এর সাথে সাভারের বক্তারপুরের গ্রেফতারকৃত আসামী রোকেয়ার ছোট ভাই জাফরের বিয়ের পর হতেই যৌতুকের টাকার জন্য গৃহবধূকে নানাভাবে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতে থাকে। দাবীকৃত যৌতুকের ষোল হাজার টাকা প্রদান করার কথা থাকলেও ভিকটিমের দরিদ্র বাবা জুরা মিয়া ছয় হাজার টাকা জাফর ও তার পরিবারকে প্রদান করেন এবং বাকি দশ হাজার টাকা পরে দিবে বলে আসামীর পরিবারকে জানায়। কিন্তু ভিকটিমের পরিবার হতদরিদ্র হওয়ায় তাদের পক্ষে বাকী টাকা দিতে আপাদত প্রকাশ করে যার প্রতিক্রিয়াস্বরূপ ভিকটিমের স্বামী জাফর, গ্রেফতারকৃত আসামী রোকেয়া, রোকেয়ার স্বামী আঃ রহিম এবং অন্যান্যরা ভিকটিমকে বিভিন্ন সময়ে যৌতুকের টাকা দেওয়ার জন্য শারীরিকভাবে নির্যাতনসহ মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আসতে থাকে। এমনকি ঘটনার দুই তিন দিন আগে ভিকটিমের বাবার বাড়ি থেকে উক্ত টাকা এনে দেওয়ার জন্য ভিকটিমের মুখে সিগারেটের আগুন দিয়ে সেঁকা দেয়। মূলত উক্ত যৌতুকের বাকী টাকা ভিকটিমের স্বামী জাফর তার বোন গ্রেফতারকৃত আসামী রোকেয়াকে বিদেশে যাওয়ার জন্য দেয়ার কথা ছিলো। ঘটনার দিন অর্থাৎ ৭ জুন ২০০৫ তারিখ পূর্ব পরিকল্পনা মতে ভিকটিমকে ফুসলিয়ে গ্রেফতারকৃত আসামী রোকেয়া ও আঃ রহিম এর ঢাকা জেলার ধামরাই থানাধীন সৈয়দপুর তাদের ভাড়া বাড়িতে স্বামী জাফর দাওয়াত করে নিয়ে আসে। সেখানে গ্রেফতারকৃত আঃ রহিম, রোকেয়া, ভিকটিম এবং ভিকটিমের স্বামী জাফরের উপস্থিতিতে কথাবার্তার এক পর্যায়ে তারা সেই যৌতুকের বাকি টাকা দাবি করলে ভিকটিম সামিনা জানায় যে তার পরিবার হতদরিদ্র হওয়ায় আপাদত টাকা দিতে পারবেনা। এতে ভিকটিমের স্বামী জাফর গ্রেফতারকৃত আসামী আঃ রহিম, রোকেয়া এবং অন্যান্য আসামীর উপস্থিতিতে ভিকটিমের উপর শারীরিক নির্যাতন শুরু করে এবং মারধরের একপর্যায়ে ভিকটিমের স্বামী জাফর ঘরে থাকা দাহ্য জাতীয় পদার্থ ভিকটিমের শরীরে ঢেলে দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে বাহির থেকে ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। ভিকটিমের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এসে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভিকটিমকে উদ্ধার করে প্রথমে নয়ারহাট গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ভর্তি করে এবং সেখানে অবস্থার অবনতি দেখলে সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করা হয়। পরবর্তীতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ ই জুন ২০০৫ তারিখ সামিনা মৃত্যুবরণ করে। মৃত্যুর আগে ভিকটিম আসামীদের নাম উল্লেখ করে মৃত্যুকালীন জবানবন্দি প্রদান করে।

পরবর্তীতে সামিনার মা মোসাঃ নাজমা বেগম ০৯ জুন ২০০৫ বাদী হয়ে ভিকটিমের স্বামী জাফরকে মূল অভিযুক্ত, জাফরের বড় ভাই জাহাঙ্গীর, সালেক, জাফরের বড় বোন রোকেয়া ও তার স্বামী আঃ রহিম এবং জাফরের মামা ফেলানিয়া ও মোট ০৬ জনকে আসামী করে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেন  ৫ জুলাই ২০১৮ তারিখ মামলার দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমানাদি গ্রহণ শেষে আসামীদের অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল নং-৯, ঢাকা এর বিজ্ঞ বিচারক মামলার রায় ঘোষণা করেন এবং ভিকটিমের স্বামী জাফরকে মূল অভিযুক্ত, জাফরের বড় ভাই জাহাঙ্গীর, সালেক, জাফরের বড় বোন রোকেয়া ও তার স্বামী আঃ রহিম এবং জাফরের মামা ফেলানিয়াসহ মোট ০৬ জনকে মৃত্যুদন্ড ও প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ডের আদেশ প্রদান করেন। ঘটনার পরেই শুধুমাত্র বড়ভাই জাহাঙ্গীর ব্যতীত এই মামলার সকল আসামী গ্রেফতার হয়। মামলার মূল অভিযুক্ত আসামী জাফর অদ্যবধি জেল হাজতে রয়েছে। বড় ভাই সালেক ও মামা ফেলানিয়া মামলা চলাকালীন সময়ে গ্রেফতার হয়ে ০১ বছর কারাভোগের পর জামিনে মুক্তি পায় এবং বর্তমানে তারা পলাতক রয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামী আব্দুর রহিম ১১ মাস ও রোকেয়া ১৭ মাস কারাভোগের পর ২০০৬ সালের শেষের দিকে জামিনে মুক্তি পেয়ে আত্মগোপনে চলে যায়। রায়ের সময় শুধুমাত্র ভিকটিমের স্বামী জাফর আদালতে হাজির ছিলেন বাকি আসামী পলাতক ছিল। দীর্ঘ পলাতক থাকার পর গতকাল রাতে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী রোকেয়া এবং আঃ রহিমকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে এই মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আরোও ০৩ জন আসামী পলাতক রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত আসামী আঃ রহিম উক্ত রায়ের পর থেকে ঢাকা জেলার বিভিন্ন এলাকায় পেশা পরিবর্তন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। কখনো সে তালা-চাবি তৈরি, কখনো বাবুর্চির হেলপার আবার কখনো শরবত বিক্রি এমনকি বিভিন্ন মাজারের কর্মী হিসেবে আত্মগোপনে থেকে জীবিকা নির্বাহ করত। সে কখনোই এক জায়গায় বসবাস করত না। কিছুদিন পর পরই বাসস্থান পরিবর্তন করত। গ্রেফতার হওয়ার আগ পর্যন্ত ধৃত আসামী কখনই তার নিজ বাড়িতে ফিরে যায়নি। ধৃত আসামী রোকেয়া মূলত একজন গার্মেন্টস কর্মী। ঘটনার পর থেকে সে আত্মগোপনে থাকার জন্য এক গার্মেন্টসে বেশীদিন চাকুরী করত না বরং ২০১৭ সালো তার নিজের আইডি কার্ডে বয়স কমিয়ে জন্মতারিখ পরিবর্তন করে নিজেকে অবিবাহিত দেখিয়ে পিতার নাম পরিবর্তন করে নতুন আইডি কার্ড তৈরি করে। গৃহকর্মী হিসেবে কৌশলে সৌদিআরবে পাড়ি জমায়। সে গত ০৫ বছর যাবৎ দেশের বাহিরে ছিল। গত জুনের প্রথম দিকে বাংলাদেশে ফেরত আসে এবং গত ০২ মাস যাবৎ মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী আঃ রহিম এবং রোকেয়া তাদের কন্যা পিংকির চাঁদপুরের নারায়নপুর গ্রামে শশুর বাড়ির পাশেই একটি ভাড়া বাড়িতে অবস্থানকালীন সময় গতকাল রাতে র‌্যাব-৪ কর্তৃক আটক হয়। 

 গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হন্তান্তর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।