গাইবান্ধায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সহ ৮ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড, ৯জন বেকসুর খালাস

গাইবান্ধায় সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সহ ৮ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড, ৯জন বেকসুর খালাস
ছবিঃ সংগৃহীত

আবু তাহের।। গাইবান্ধা।। গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে কৃষক হাসান আলী হত্যার দায়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদকসহ আটজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও ৯ জন‌কে খালাস দিয়েছে জ্যেষ্ঠ জেলা দায়রা ও জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক। 

১৮ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে এ রায় দেন।

দণ্ডিতরা হলেন পলাশবাড়ী উপ‌জেলা প‌রিষ‌দের সা‌বেক চেয়ারম‌্যান নজরুল ইসলম ( লেবু মাওলানা), আব্দুর রউফ, জালাল উদ্দিন, গোলাম মোস্তফা, শাহআলম, ফারুক মিয়া, মিজানুর রহমান ও আবু তালেব।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ১৯৯৯ সালের আগস্ট মাসে পলাশবাড়ী উপজেলার আমবাড়ি গ্রামের একটি কলেজের কমিটিকে কেন্দ্র করে ওই কলেজের অধ্যাপক আব্দুলের সঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম লেবুর বিরোধ দেখা দেয়। পরে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নজরুলের লোকজন আব্দুলের ওপর হামলা চালায়।

এ সময় পাশের সুইগ্রামের কৃষক হাসান আলী আব্দুলকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তিনিও আহত হন। পরবর্তীতে তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় হাসানের বড় ভাই আবুল কাশেম ১০ জনের নামে ও অজ্ঞাতপরিচয় ১০ থেকে ১৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার পর নজরুল ইসলামসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আইনজীবী শফিকুল ইসলাম শফিক বলেন, পুলিশ এ মামলায় ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। দীর্ঘ সময় ধরে বিচার প্রক্রিয়া চলার পর ৮ জনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও একই সঙ্গে প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ৭ বছর কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত । মামলায় অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় ৮জন আসামীকে  বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।