রাতের ভোটে শেষ পর্যন্ত হারলেন ইমরান, ছাড়তে হচ্ছে গদি

রাতের ভোটে শেষ পর্যন্ত হারলেন ইমরান, ছাড়তে হচ্ছে গদি
ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদন:  ইমরান সরকারের সমাধি রচিত হলো দিনভর নাটকিয়তার মধ্যে দিয়ে। পাকিস্তানের ইতিহাসের ধারা রইলো অব্যাহত। আজ পর্যন্ত কোন সরকার পূর্ণ মেয়াদে সরকার পরিচালনা করতে পারেনি।

শনিবার গোটা দিন ধরেই তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থাভোটকে(No-Confidence Vote) কেন্দ্র করে একের পর এক নাটক দেখে পাকিস্তান(Pakistan)। তারপর একটা সময় তা পিছিয়ে যায় সেখানকার সময় রাত ৮টা পর্যন্ত। ফের সুপ্রিম কোর্টের(Pakistan Supreme Court) নির্দেশ মেনে সেখানকার সময় রাত ১২টার আগেই হয় ভোটাভুটির কাজ শুরু হয়। ৩৪৪ আসনের পাকিস্তান ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে(Pakistan National Assembly) তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনতে বিরোধীদের দরকার ছিল ১৭২ ভোটের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আরও ৪টি ভোট বেড়ে তা দাঁড়ায় ১৭৬-এ। ফলে সেখানে পতন হয় তেহরিক-এ-ইনসাফ পার্টি পরিচালিত ইমরাম খান সরকারের।

পাক সংবাদমাধ্যমের খবর, শনিবার আনাস্থাভোট করাতে চাইছিলেন না ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির স্পিকার। যদিও পরে চাপে পড়েই সেই ভোটাভুটিতে রাজি হন তিনি। তবে, ভোট শুরু হতেই ইস্তফা দিলেন ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির স্পিকার এবং ডেপুটি স্পিকার দু'জনেই। প্রশ্ন উঠে স্পিকার এবং ডেপুটি স্পিকারের অনুপস্থিতিতে কে অনাস্থা ভোট পরিচালনা করবেন?

প্রসঙ্গত, আগে থেকেই অনুমান ছিল যে আর কোনও ভাবেই সরকার টেকাতে পারবেন না তিনি। তাই, এদিনের ভোটাভুটিতে অংশই নেয়নি তাঁর দল। অনাস্থা ভোট শুরু হওয়ার আগেই পাকিস্তান ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি ছেড়ে বেরিয়ে যান তেহরিক-এ-ইনসাফ পার্টির সাংসদরা। ইমরান খান নিজেও সেখানে হাজির হননি একবারের জন্যও।