স্বাচিপের দুই শীর্ষ পদে আলোচনায় আজিজ-বীরু

স্বাচিপের দুই শীর্ষ পদে আলোচনায় আজিজ-বীরু
ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক।। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ)। পেশাজীবি চিকিৎসকদের এই সংগঠনের পঞ্চম সম্মেলন আগামী ২৫ নভেম্বর। এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে কমিটির দুই শীর্ষ পদে উঠে আসতে চান অনেকেই। তবে মূল আলোচনায় রয়েছেন দুইজন। 

স্বাচিপের বর্তমান সভাপতি এম ইকবাল আর্সলান এবং সাধারণ সম্পাদক (মহাসচিব) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এম আবদুল আজিজ। ক্ষমতাসীন দলের এই পেশাজীবী চিকিৎসকদের সংগঠনে এবারের সম্মেলনের মধ্য দিয়ে পরিবর্তন আসার ইঙ্গিতও রয়েছে। সংগঠনটির সভাপতির পদে এবার আলোচনায় রয়েছেন- বর্তমান মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ। 

আবার তার পরপরই শক্ত অবস্থানে রয়েছেন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া। এছাড়া অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান ও বর্তমান সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সনাল আলোচনায় রয়েছেন একই পদের জন্য।

সংগঠনের অনেকের মতেই দীর্ঘ সময় ধরে সংগঠনটিতে দায়িত্ব পালন করা ইকবাল আর্সনালকে এবার আর সভাপতি পদে দেখা যাবে না। 

প্রার্থীতার বিষয়ে প্রফেসর ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘আমি এবার সভাপতি পদে আগ্রহ প্রকাশ করছি। এটাই আমার জন্য শেষ সময়। এরপর আর বয়সও নাই।’ 

তিনি বলেন, ‘আমি ১৯৭৫ সালে চাকরির শুরু থেকে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অবিচল চিকিৎসকদের সাথে আছি। গত ২০ বছর ধরে স্বাচিপের সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। এবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে দায়িত্ব দিলে আমি সততা ও নিষ্ঠার সাথে সংগঠনকে এগিয়ে নিতে চাই।’


মহাসচিব পদে জোর আলোচনায় রয়েছেন অধ্যাপক ডা. আবু জাফর চৌধুরী (বীরু)। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থপেডিক বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ১নং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। 

কলেজ জীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন বীরু। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও সহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন এই চিকিৎসক। ২০০৩ সালে ১৫ হাজার চিকিৎসকের সংগঠন স্বাচিপের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ডা. আবু জাফর চৌধুরী (বীরু) স্বাচিপের বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সংগঠনটির মহাসচিব হওয়ার দৌড়ে রয়েছেন- প্রফেসর ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া, প্রফেসর ডা. বায়জিদ খুরশিদ রিয়াজ, অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, অধ্যাপক ডা. তারেক মেহেদী পারভেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা অনুষদের ডিন প্রফেসর ডা. শাকিল আহমেদ।

আবার মহাসচিব পদে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরো সার্জারী বিভাগের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন।

তিনি জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি। মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পেলে সংগঠনকে এগিয়ে নিতে চান তিনি। 

১৯৯৩ সালের ২৪ ডিসেম্বর গঠিত হয় স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ)। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাকালে অধ্যাপক এম, এ, কাদেরী সভাপতি ও মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব লাভ করেন। ২০০৩ সালের কেন্দ্রীয় সম্মেলনে অধ্যাপক আ ফ ম রুহুল হক সভাপতি ও অধ্যাপক এম ইকবাল আর্সলান মহাসচিব নির্বাচিত হন। সবশেষ ২০১৫ সালে ১৩ নভেম্বর স্বাচিপের চতুর্থ জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতি হন এম ইকবাল আর্সলান ও সাধারণ সম্পাদক হন এম এ আজিজ।