সাবরিনার পরিবারের পাশে থাকবে বিশ্ববিদ্যালয়ঃ জবি উপাচার্য

সাবরিনার পরিবারের পাশে থাকবে বিশ্ববিদ্যালয়ঃ জবি উপাচার্য
ছবিঃ সংগৃহীত

প্রিয়া সরকার।। জবি প্রতিনিধি।।সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবির)  গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাবরিনা আক্তার মিতু'র নিহতের ঘটনায় তার পরিবারকে আইনী ও আর্থিকভাবে যেকোন সহযোগিতায় পাশে থাকবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক।

( বুধবার) বেলা সাড়ে ১২ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়ামে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের অনুষ্ঠিত শোক সভায় এসব কথা বলেন তিনি। 

উপাচার্য আরও বলেন, আমরা সাবরিনাকে এখন আর পাব না কিন্তু তাঁর হত্যার যেন সুষ্ঠু বিচার হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনী সেলের মাধ্যমে এ সহায়তা করা হবে। এছাড়াও যেহেতু তাঁর পরিবার অসচ্ছল সে পড়াশুনা শেষ করে কিছু না কিছু করতো, সেহেতু আমরা তো সেই পর্যায়ে কিছু করতে পারবোনা। তবে আমরা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর্থিকভাবে দীর্ঘমেয়াদী সাহায্যের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দিন আহমদ বলেন,  আমরাও চাই সাবরিনা হত্যার বিচার হোক। আমাদের হল না থাকায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বাইরে থেকে এক ধরণের সড়ক দুর্ঘটনার আতঙ্ক নিয়ে আসতে হয়। নতুন ক্যাম্পাস হয়ে গেলে আর এ আতঙ্ক থাকবে না। আমরা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় মিতুর পরিবারের যেকোন সহযোগিতায় পাশে থাকব।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়্যারপারসন ড. শাহ মো. নিসতার জাহান কবীর বলেন, মেয়েটি গ্রামে যাওয়ার তিনদিন আগেও দেখা করে যায়। মেয়েটি খুবই হাসিখুশি থাকতো। আমি আসলে তাকে ভুলতে পারছি না। সড়ক দুর্ঘটনায় জড়িতরা আইনের আওতায় আসছে না। তাদের বিচার হওয়া দরকার। আমি কখনো এমন শোক সভায় দাঁড়াতে চাই না। মেয়েটির পরিবার খুবই দরিদ্র। তার পরিবারের পাশে আমাদের সকলের দাঁড়ানো উচিত।

এসময় শোকসভায় বিশ্ববিদ্যালিয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. আইনুল ইসলামের সভাপতিত্বে  সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন ড. অরুণ কুমার গোস্বামী, প্রক্টর ড. মোস্তফা কামাল, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. আবুল হোসেন , সাধারণ অধ্যাপক আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমানসহ গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ ও শিক্ষার্থীরা বক্তব্য প্রদান করেন।