সৈয়দপুরে স্বামীর লিঙ্গ কর্তন স্ত্রীর দায় অস্বীকার

সৈয়দপুরে স্বামীর লিঙ্গ কর্তন স্ত্রীর দায় অস্বীকার
ছবি: সংগৃহীত

স্টাফ রিপোর্টার।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে পারিবারিক কলহের কারণে আনোয়ারুল ইসলাম নামের এক যুবকের লিঙ্গ কর্তনের শিকার হয়েছে।

গত ১৯জুন বিকেল ৫ টায় বোতলাগাড়ী ইউনিয়নে এই ঘটনাটি ঘটে।

প্রথমে তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় পরে রংপুরে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে ৮ টি সেলাই দেওয়া হয়।

 এদিকে লিঙ্গ কর্তন নিয়ে পাল্টা পাল্টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্বামী আনোয়ারুল ইসলাম মনি (৪২) এর পিতা আব্দুল অভিযোগ করেন তাকে তার স্ত্রী রিনা সুকৌশলে ডেকে লিঙ্গ আংশিক কর্তন করেন।

 স্ত্রী রিনা(২৭) বলেন, তার স্বামী সাবেক সেনা সদস্য ছিলেন। প্রথম স্ত্রী পারিবারিক কলহের জেরে, অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। সেখানে তার স্বামি ৭ বছর সাজা ভোগ করেন। জেল থেকে বের হয়ে আরেকটি বিয়ে করেন। সেই ঘরে একটি মেয়ে রয়েছে । আমি সব অজান্তে তাকে বিয়ে করি। বিয়ের পর তার অতীত জানতে পারি। চেংমারী পাড়ার বাড়িতে গেলে তার বাড়ির আগের স্ত্রী সহ অনান্য সদস্যরা আমাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে মারধর করে। তবুও আমি পুলিশে অভিযোগ করিনি। আমার দেন মোহরের ৬ লাখ টাকা দেবার ভয়ে সে নিজের লিঙ্গ নিজে থেকে কেটেছে । যদি আমি কাটতাম তাহলে রাগের মাথায় পুরো লিঙ্গটা কেটে ফেলতাম। আটটা সেলাই পড়ত না। আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে।

 সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে আর এম ও মো মোহাইমিনুল ইসলাম রংপুর মেডিকেলে আংশিক লিঙ্গ কর্তন আনোরুলকে রেফার্ড করার সত্যতা স্বীকার করেন।